• শনিবার   ২৪ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ৯ ১৪২৭

  • || ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

পিরোজপুর সংবাদ

অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে দুই চেয়ারম্যানসহ বরখাস্ত ৫

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০  

ভালনারেবল গ্রুপ ডেভলপমেন্টের (ভিজিডি) চাল আত্মসাৎ, তারিখ পরিবর্তন করে মৃত্যু নিবন্ধন সনদ দেয়াসহ বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির জন্য ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) দুই চেয়ারম্যান ও তিন সদস্যকে (মেম্বার) সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

রোববার এই বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে আদেশ জারি করা হয়েছে। অনিয়ম-দুর্নীতিতে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় ‘স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯’ অনুযায়ী তাদের বরখাস্ত করা হয়েছে।

আদেশ অনুযায়ী, হত দরিদ্রদের জন্য বরাদ্দকৃত ভিজিডির ৩ হাজার ৯৪০ কেজি চাল উত্তোলন করে আত্মসাতের অভিযোগ স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার একডালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রেজাউল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

মৃত্যু নিবন্ধন রেজিস্টারে অন্য ব্যক্তির মৃত্যু সংক্রান্ত তথ্য ঘষামাজা করে কান্দুরা টপ্য নাম বসিয়ে এবং প্রকৃত মৃত্যুর তারিখ পরিবর্তন করে মৃত্যু নিবন্ধন সনদ দেয়ার অভিযোগ স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় নওগাঁ জেলার পোরশা উপজেলার ছাওড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফখরুদ্দিন আলী বরখাস্ত হয়েছেন।

এছাড়া এক হাজার ৪০০ পিস ইয়াবাসহ চট্টগ্রামের চান্দগাঁও থানার পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়ায় নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ৩ নম্বর চরহাজারী ইউনিয়ন পরিষদের ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. জাহাঙ্গীর আলমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

পুরনো রাস্তাকে নতুনভাবে মেরামত করা হয়েছে বলে প্রতারণার মাধ্যমে সরকারি অর্থ আত্মসাতের চেষ্টা এবং সরকারের দায়িত্ব পালনে অসহযোগিতার অভিযোগ স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার ৩ নম্বর ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. পারভেজ মোশারফ হোসেন মোশাহিদ বরখাস্ত হয়েছেন।

কর্মসৃজন প্রকল্পের ২১ জন কর্মীর ৯৪ হাজার ৮০০ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ স্থানীয় তদন্তে প্রমাণিত হওয়ায় হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে উপজেলার ৭ নম্বর নুরপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. আব্দুল হাসিমের বিরুদ্ধে শায়েস্তাগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ জন্য তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

বরখাস্ত হওয়া চেয়ারম্যান ও সদস্যদের কেন চূড়ান্তভাবে অপসারণ করা হবে না- তা জবাবপত্র পাওয়ার ১০ কার্যদিবসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার বিভাগের পাঠাতে বলা হয়েছে আলাদা কারণ দর্শানোর নোটিশে।