বুধবার   ২০ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৫ ১৪২৬   ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

পিরোজপুর সংবাদ
৪২

অপসাংবাদিকতার বিরুদ্ধে সংহতি প্রদর্শনে টিউলিপকে মেগানের ধন্যবাদ

প্রকাশিত: ৩১ অক্টোবর ২০১৯  

 

ব্রিটিশ রাজবধু ডাচেস অফ সাসেক্স খ্যাত ব্রিটেনের রাজবধু ও শিশু অর্চির মাতা ৩৮ বছর বয়সী মেগান হ্যারিসের বিরুদ্ধে দেশটির গণমাধ্যমে প্রচারিত বিরক্তিকর গল্প প্রকাশ করায় মিডিয়ার আচরণে ‘ঔপনিবেশ মানসিকতা’ বলে নিন্দা জানিয়েছেন ব্রিটিশ নারী এমপিরা। মেগান মার্কেলকে সমর্থন জানাতে মঙ্গলবার খোলা চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন দেশটির ৭২ জন নারী এমপি। তাদের মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত বিরোধী লেবার পার্টির দুই নারী এমপি টিউলিপ সিদ্দিক ও রুপা হক। সমর্থন জানানোয় বুধবার নারী এমপিদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন মেগান। 

টেলিভিশন ডকুমেন্টারিতে ব্রিটিশ ট্যাবলয়েডগুলোর ব্যক্তিগত আক্রমণ ও অন্যায্যতা নিয়ে মেগানের কথা বলার কয়েকদিন পর তারা সংহতি জানালেন। লেবার পার্টি ছাড়াও এতে সংহতি জানিয়েছে কনজারভেটিভ ও লিবারাল ডেমোক্রেটিক দল। তাদের স্বাক্ষর করা ওই চিঠিতে মেগানের প্রতি সমর্থন প্রকাশ করে বলা হয় আপনার চরিত্র এবং পরিবার সম্পর্কে আমাদের জাতীয় বহু সংবাদপত্রে ছাপা গল্পগুলো বিভ্রান্তিমূলক। বিরোধী লেবার পর্টির সদস্য হলি লিঞ্চ জানান, ওয়েস্টমিনস্টারে থাকার সময় দুপুরে বাকিংহাম প্যালেস থেকে ফোন করে মেগান নারী এমপিদের সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ দেন।

প্রথমবারের মতো মার্কেলের বক্তব্য একটি ডকুমেন্টারি বা তথ্যচিত্রে প্রকাশ পেয়েছে। তথ্যচিত্রে ব্রিটিশ রাজপরিবারের সদস্য হিসেবে সংবাদমাধ্যমের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা শিশু আর্চির মা হিসেবে নিজের সংগ্রামের কথা বলেছেন মেগান মার্কেল। একটি ব্যক্তিগত চিঠি প্রকাশের জন্য ‘মেইল অন সানডে’ সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিচ্ছেন মেগান। যে চিঠি তিনি তার বাবা থমাস মার্কেলের কাছে লিখেছিলেন। আর ফোন হ্যাকিংয়ের অভিযোগে ‘দ্য সান’ ও বিলুপ্ত পত্রিকা ‘নিউজ অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ ও ‘দ্য মিরর’ মালিকের বিরুদ্ধে মামলা করছেন প্রিন্স হ্যারি। তথ্যচিত্রে তার স্বামী প্রিন্স হ্যারিও তার ওপর চাপ সৃষ্টির কথা বলেছেন। স্ত্রীর বিষয় নিয়ে তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করে হ্যারি বলেন, তার মা প্রিন্সেস ডায়নাও একই চাপে ছিলেন, যিনি ১৯৯৭ সালে প্যারিসে গাড়ি দুর্ঘটনায় মারা যান। 

এই বিভাগের আরো খবর