• সোমবার   ১৯ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ৬ ১৪২৮

  • || ০৬ রমজান ১৪৪২

পিরোজপুর সংবাদ

আ`লীগ প্রার্থীর প্রচারকেন্দ্রে বিএনপির কর্মী-সমর্থকদের হামলা

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

জামালপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেনের নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারকেন্দ্রে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এর জের ধরে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী শাহ মো. ওয়ারেছ আলী মামুনের সমর্থকদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

শুক্রবার রাত ৯টার দিকে পৌরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের বগাবাঈদ বোর্ডঘর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার রাত ৯টার দিকে পৌরসভার রশিদপুর এলাকা থেকে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী শাহ মো. ওয়ারেছ আলী মামুনের সমর্থনে ধানের শীষ প্রতীকের একটি নির্বাচনী মিছিল নিয়ে স্থানীয় বগাবাঈদ বোর্ডঘর মোড়ের দিকে যাচ্ছিল নেতাকর্মীরা। এ সময় ওই মিছিল থেকে বগাবাঈদ বোর্ডঘর মোড়ে রাস্তার পাশের আওয়ামী লীগের প্রার্থীর নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারকেন্দ্রে ইটপাটকেল ছুঁড়ে মারে। হামলাকারীরা প্রচারকেন্দ্রটির ভেতরে ঢুকে চেয়ার টেবিল ভাঙচুর করে এবং নৌকা প্রতীকের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলে। এ সময় নির্বাচনী প্রচারকেন্দ্রে অবস্থান করা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী দ্রুত চলে যাওয়ায় তারা প্রাণে বেঁচে যান।

খবর পেয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা সেখানে ছুটে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হন। একপর্যায়ে বিএনপির প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা বেশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছালে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

খবর পেয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরী, দলীয় মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেন ও অন্যান্য নেতাকর্মীরা ক্ষতিগ্রস্ত নির্বাচনী প্রচারকেন্দ্র পরিদর্শন করেন। সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে তারা এ হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। একই সঙ্গে হামলাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান তারা।

জামালপুর সদর থানার ওসি মো. রেজাউল ইসলাম খান বলেন, রাতে বগাবাঈদ বোর্ডঘর এলাকায় আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারকেন্দ্রে হামলা-ভাঙচুরের ঘটনায় এখনো পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা হয়নি। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে হামলার আলামত পাওয়া গেছে।