শনিবার   ২৪ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৮ ১৪২৬   ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

পিরোজপুর সংবাদ
১৮

ঈদে মাংস কাটাকাটির পর হাতের যত্নে যা যা করবেন

প্রকাশিত: ৮ আগস্ট ২০১৯  

বছর ঘুরে চলে এলো কোরবানির ঈদ। ঈদের সময় আমরা সবাই রুপচর্চার মাধ্যমে সাজগোজের দিক থেকে সয়ংসম্পুর্ন থাকার চেষ্টা করি। যেহেতু এ ঈদে আমাদের মাংস কাটাকাটি করতে হয় এর ফলে আমাদের হাতের ত্বক রুক্ষ হয়ে যায়। আর যেহেতু বর্ষায় কোরবানির ঈদ। তাই হাতের বিশেষ যত্ন নেয়া প্রয়োজন।

ঈদে মাংস কাটাকাটির পর হাতের যত্নে যা যা করবেন

প্যাক

* ২ টেবিল চামচ হলুদ পেস্ট, ২ টেবিল চামচ শসার পেস্ট, ২টি ডিমের কুসুম, যব ভাজা গুঁড়া ৪ টেবিল চামচ নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে পুরো হাতে ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে নিতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে এতে পানি যেন ব্যবহার করা না হয়। নিয়মিত এ প্যাকটি ব্যবহারের ফলে হাতের ঔজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে, একই সাথে হাত দুটোর কোমলতা ও মসৃণতা বজায় থাকবে।

ময়েশ্চারাইজার

হাতের যত্নে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা জরুরি। ঘরেই এই ময়েশ্চারাইজার তৈরি করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে ১ কাপ গোলাপ জল, ১ টেবিল চামচ গ্লিসারিন, ৪টি ভিটামিন ‘ই’ ক্যাপসুল, ৬টি ভিটামিন ‘সি’-এর গুঁড়া ভালো করে মিশিয়ে কাচের বোতলে রাখতে হবে। এ গুঁড়া প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে মালিশ করতে হবে। নিয়মিত ১ সপ্তাহ এটি ব্যবহার করার মাধ্যমে হাতের ঔজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে ও কোমলতা বজায় থাকবে।

স্ক্রাবিং

হাতের যত্নে স্ক্রাবিং এর কোনো বিকল্প নেই। ঘরে তৈরি করে নিতে পারেন এ স্ক্রাবার। হাফ কাপ ব্রাউন সুগার, ১টি পাতি লেবুর রস, ১টি ডিমের সাদা অংশ, ৩ টেবিল চামচ গ্লিসারিন ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে পুরো হাতে স্ক্রাব করতে হবে। যতক্ষণ পর্যন্ত চিনি না গলে ততক্ষণ পর্যন্ত স্ক্রাব করতে হবে।

এসময়ে ফাংগাল ইনফেকশন হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই প্রাকৃতিকভাবে এসব ইনফেকশন দূর করতে হলে- ৩ লিটার পানিতে ১০ কাপ নিমপাতা, ৪ কাপ পুদিনাপাতা, ৪ কাপ তুলসীপাতা জ্বাল করে কুসুম গরম পানিতে ১৫ মিনিট হাত ডুবিয়ে রাখতে হবে। এরপর নেইল ব্রাশ দিয়ে পুরো হাত ও পায়ের নখ ব্রাশ করতে হবে। যাদের ফাংগাল ইনফেকশন আছে তাদের সাবান না ব্যবহার করাই উচিত। তাই আর দেরি না করে এখন থেকেই নিয়মিত হাতের যত্ন নেয়া শুরু করে দিন।