শনিবার   ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১৭ ১৪২৬   ০৫ রজব ১৪৪১

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
মন্টেভিডিওতে রাষ্ট্রপতি,কাল যোগ দিবেন ক্ষমতা হস্তান্তর অনুষ্ঠানে করোনা ভাইরাস নিয়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বঙ্গবন্ধু অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ দিয়েছেন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মশা যেন ভোট খেয়ে না ফেলে, নতুন মেয়রদের প্রধানমন্ত্রী তাপস-আতিককে শপথ পড়ালেন প্রধানমন্ত্রী এক ঘণ্টায় করোনা ভাইরাস শনাক্ত করা সম্ভব: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শিশুদেরকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করতে হবে : স্পিকার ব্যাংক বন্ধ হলে ১ লাখ টাকা পাওয়ার তথ্য গুজব : কেন্দ্রীয় ব্যাংক নারীরা নিকাহ রেজিস্ট্রার হতে পারবে না: হাইকোর্ট ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমের সুদ হার আগের মতো ১৭ মার্চ থেকে : অর্থমন্ত্রী
৭৩

পরিবেশ বিষয়ক পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করলো গ্রেটা

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ৩১ অক্টোবর ২০১৯  

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে গোটা বিশ্বের ৩০ কোটিরও বেশি মানুষ গৃহহীন হওয়ার ঝুঁকিতে। কিন্তু বিশ্বনেতারা এ নিয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ। তাদের ভূমিকাকে বিদ্রুপ করে জলবায়ু আন্দোলনে সাড়া জাগায় কিশোরী গ্রেটা থানবার্গ। সম্প্রতি পাওয়া একটি পুরস্কার গ্রহণে অস্বীকৃতি জানিয়েছে সে।

সুইডেনের ১৬ বছর বয়সী গ্রেটা থানবার্গকে জলবায়ু আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকার জন্য চলতি বছরের পরিবেশ বিষয়ক পুরস্কারের জন্য মনোনীত করে আন্ত-সংসদীয় সহযোগিতা বিষয়ক আঞ্চলিক সংস্থা নরডিক কাউন্সিল। কিন্তু কিশোরী গ্রেটা জানালেন তিনি এ পুরস্কার গ্রহণ করবেন না।

পুরস্কার নিতে নিজের অস্বীকৃতির কথা জানিয়ে গ্রেটা বলেছে, জলবায়ু আন্দোলনের জন্য পুরস্কার নয়, ক্ষমতাধর মানুষদের বিজ্ঞানের কথা শুনতে শুরু করানো প্রয়োজন। স্কুল শিক্ষার্থী গ্রেটা তার ফ্রাইডেস ফর ফিউচার আন্দোলনের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী আলোচিত হয়।

ফ্রাইডেস ফর ফিউচার অর্থাৎ সপ্তাহের একদিন ভবিষ্যতের জন্য ব্যয় করার ডাক দিয়ে কিশোরী গ্রেটা জলবায়ু আন্দোলেন লাখ লাখ মানুষকে সমবেত করে নজর কেড়েছিল সবার। ২০১৮ সালের আগস্টে নিজ দেশের পার্লামেন্টের সামনে ‘স্কুল স্ট্রাইক ফর ক্লাইমেট’ আন্দোলনের ডাক দেয় সে।

গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, আজ পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু গ্রেটার নাম ঘোষণার পর গ্রেটার পক্ষে এক প্রতিনিধি উপস্থিত সবার উদ্দেশে বলেন, গ্রেটা এই পুরস্কার এবং পুরস্কারের অর্থমূল্য কিছুই গ্রহণ করবে না বলে আমার মাধ্যমে আপনাদের জানাতে বলেছে।’

আজ পুরস্কার প্রদানের সময় গ্রেটা ছিল যুক্তরাষ্ট্রে। সেখান থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা এক বার্তায় সে জানায়, ‘কোনো পুরস্কারের প্রয়োজন নেই। আমাদের এখন যা প্রয়োজন তা হলো রাজনৈতিক নেতারা এবং ক্ষমতাবানরা যেন বিজ্ঞানের সমসাময়িক বিষয়গুলো শোনা শুরু করেন।’

এই বিভাগের আরো খবর