বৃহস্পতিবার   ১২ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৮ ১৪২৬   ১৪ রবিউস সানি ১৪৪১

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
ঘুষ-দুর্নীতির বিরুদ্ধে সজাগ থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ভান্ডারিয়ায় ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস উপলক্ষে র‌্যালী অনুষ্ঠিত মঠবাড়িয়ায় ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস উপলক্ষ্যে র‌্যালী ও আলোচনা সভা ভারতের উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারে দায়িত্বশীল হতে হবে: স্পিকার তৃতীয় টার্মিনাল নির্মাণ হলে সেবা পাবে আরও ১২ মিলিয়ন যাত্রী মালিকের গাফিলতিতে কেরানীগঞ্জে অগ্নিকাণ্ড: স্বাস্থ্যমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানালেন ট্রাইব্যুনাল রূপপুর বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে দেশ নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পাবে ৬০ বছর বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন: ড. কামাল-রীভা গাঙ্গুলির বৈঠক
৭১

পিরোজপুরে রবিশস্য চাষে দেয়া হচ্ছে ৩৫ লাখ টাকা প্রণোদনা

প্রকাশিত: ১৯ নভেম্বর ২০১৯  

 

 

পিরোজপুর জেলায় ২ হাজার ৭শত জন ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষীকে রবিশস্য চাষাবাদে ৩৫ লাখ ৭৬ হাজার ৮শ টাকা প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে। কৃষি অগ্রযাত্রা অব্যহত রাখতে এ কৃষি প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে বলে জানা যায়। রবি মৌসুমে গ্রীষ্মকালীন মুগ ও খরিপ-২ মৌসুমে শীতকালীন মুগ, ভুট্টা ও সূর্যমূখী চাষে এ প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে।

মুগ, ভুট্টা ও সূর্যমূখীর ক্ষুদ্র প্রান্তিক চাষীদের প্রায় ৩৬ লক্ষ টাকা প্রদান করার প্রস্তুতি পিরোজপুরের কৃষি বিভাগ ইতিমধ্যেই সম্পন্ন করেছে। এ নিয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ে কৃষি প্রণোদনার আওতায় ৬ লক্ষ ৮৬ হাজার ৭শত জন ক্ষুদ্র প্রান্তিক কৃষককে ৮০ কোটি ৭৩ লাখ ৯১ হাজার ৮ শত টাকার বীজ ও রাসায়নিক সার প্রদান করছে। পিরোজপুর জেলার ৭ উপজেলার ৫১টি ইউনিয়ন ও ৪টি পৌর এলাকার ১ হাজার জন ভুট্টা চাষীকে প্রতি বিঘার জন্য ২ কেজি বীজ, ২০ কেজি ডিএপি সার এবং ১০ কেজি এমওপি প্রদান করছে।

একই এলাকার ৯শ জন শীতকালীন মুগ চাষীর প্রত্যেককে ৫ কেজি বীজ, ১০ কেজি ডিএপি সার ১০ কেজি এমওপি এবং ৫শ জন গ্রীষ্মকালীন মুগ চাষীর প্রত্যেককে একই পরিমাণ বীজ ও সার দেয়া হচ্ছে। এছাড়া ৩শ জন সূর্যমূখী চাষীর প্রত্যেককে দেড় কেজি বীজ, ২০ কেজি ডিএপি সার এবং ১০ কেজি এমওপি সার দেয়া হচ্ছে।

পিরোজপুরের জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অরুন রায় জানান, এর ফলে চাষীরা এসব ফসল চাষাবাদে উৎসাহী হচ্ছে এবং ডাল ও সূর্যমূখী উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

এই বিভাগের আরো খবর