শনিবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৩ ১৪২৬   ০৯ রবিউস সানি ১৪৪১

পিরোজপুর সংবাদ
৩২

প্রতিবেশীর সাথে সদাচরণ করুন

প্রকাশিত: ২ ডিসেম্বর ২০১৯  

 

প্রতিবেশীর প্রতি সুন্দরতম ব্যবহার হচ্ছে ইসলামি চরিত্রের অন্যতম। প্রতিবেশী হলো সেসব লোক যারা আপনার বাড়ির আশেপাশে বসবাস করে। যে আপনার সবচেয়ে নিকটবর্তী সে আপনার সুন্দর ব্যবহার এবং অনুগ্রহের সবচেয়ে বেশি হকদার। আল্লাহ তায়ালা বলেন,

﴿وَبِٱلۡوَٰلِدَيۡنِ إِحۡسَٰنٗا وَبِذِي ٱلۡقُرۡبَىٰ وَٱلۡيَتَٰمَىٰ وَٱلۡمَسَٰكِينِ وَٱلۡجَارِ ذِي ٱلۡقُرۡبَىٰ وَٱلۡجَارِ ٱلۡجُنُبِ وَٱلصَّاحِبِ بِٱلۡجَنۢبِ﴾

‘আর মাতা-পিতার প্রতি সদ্ব্যবহার করো, নিকটাত্মীয়, এতিম, মিসকিন, নিকটতম প্রতিবেশী ও পার্শ্ববর্তী প্রতিবেশীর প্রতিও।’ [সুরা নিসা, ৪ : ৩৬]

এতে আল্লাহ নিকটতম ও দূরবর্তী প্রতিবেশীর প্রতি সদ্ব্যবহার করার আদেশ করেছেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন,

«مَا زَالَ يُوصِينِي جِبْرِيلُ بِالْجَارِ، حَتَّى ظَنَنْتُ أَنَّهُ سَيُوَرِّثُهُ»

‘জিবরিল আমাকে প্রতিবেশীর ব্যাপারে এত বেশি ওসিয়ত করছিল, এক আমি ধারণা করছিলাম যে, প্রতিবেশীকে ওয়ারিশ বানিয়ে দিবে।’ [বুখারি, আসসাহিহ : ৬০১৪; মুসলিম, আসসাহিহ : ২৬২৫] 

অর্থাৎ আমি মনে করেছিলাম যে ওয়ারিশদের সাথে প্রতিবেশীর জন্য মিরাসের একটি অংশ নির্ধারিত করে দেবে।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আবু যর রাদিয়াল্লাহু আনহুকে লক্ষ্য করে বলেন,

«يَا أَبَا ذَرٍّ إِذَا طَبَخْتَ مَرَقَةً، فَأَكْثِرْ مَاءَهَا، وَتَعَاهَدْ جِيرَانَكَ»

‘হে আবু যর! যখন তুমি ঝোল জাতীয় তরকারি রান্না করবে তখন পানি একটু বেশি করে দাও এবং তোমার প্রতিবেশীর হক পূরণ করো।’ [মুসলিম, আসসাহিহ : ২৬২৫]

প্রতিবেশীর হক রয়েছে, যদিও সে কাফির হয়। ইসলামের ইতিহাসে এ রকম অনেক ঘটনা আছে যে, মুসলিম প্রতিবেশীর চারিত্রিক মাধুর্যতায় মুগ্ধ হয়ে বহু কাফির ইসলাম গ্রহণ করেছে। 

এই বিভাগের আরো খবর