সোমবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯   ভাদ্র ৩১ ১৪২৬   ১৬ মুহররম ১৪৪১

পিরোজপুর সংবাদ
১৪

বাংলাদেশের বাজারে নোকিয়ার নতুন ৭ ফোন

প্রকাশিত: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯  


 
এইচএমডি গ্লোবাল, নোকিয়া ব্র্যান্ড ফোনের নির্মাণ সংস্থা বুধবার বাংলাদেশের বাজারে মাঝারি রেঞ্জের দুটি অ্যান্ড্রয়েড ফোনসহ নোকিয়া ব্র্যান্ডের সাতটি নতুন হ্যান্ডসেট উন্মোচনের ঘোষণা দিয়েছে। এইচএমডি গ্লোবালের প্যান এশিয়া হেড রাভি কুনওয়ার রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন।


মাঝারি রেঞ্জের দুটি অ্যান্ড্রয়েড ফোনের একটি নোকিয়া ৭.২। ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ ও ৪৮ মেগাপিক্সেল ক্ষমতার জেইস অপটিক্স। অপরটি নোকিয়া ৬.২। ফোনটিতে রয়েছে পিওর ডিসপ্লে স্ক্রিন, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের নিয়ন্ত্রিত তিন ক্যামেরার সেটআপ।

পাশাপাশি দুটি ফোনেই ব্যবহার করা হয়েছে দুই দিনের ব্যাটারি লাইফ যা একসাথে ডিসপ্লে ও ছবি তোলার দারুণ এক অভিজ্ঞতা দিবে। এছাড়া, নোকিয়া ৭.২ ও নোকিয়া ৬.২ তে ব্যবহার করা হয়েছে অ্যান্ড্রয়েড-১০ এবং প্রিমিয়াম নর্ডিক ডিজাইনের শৈল্পিক কারুকাজ।

এইচএমডি গ্লোবালের প্যান এশিয়া হেড রাভি কুনওয়ার বলেন, বিগত বছরগুলোতে গ্রাহকদের কাছ থেকে পাওয়া ভালবাসা ও সমর্থন বাংলাদেশকে সর্বদা আমাদের কাছে বিশেষ বাজার হিসেবে দাঁড় করিয়েছে।আজ আমরা যেই নতুন স্মার্টফোন দুইটি উন্মোচন করেছি, আমার দৃঢ় বিশ্বাস আমাদের গ্রাহকরা এর অত্যাধুনিক ডিসপ্লে ও ছবি তোলার দারুণ অভিজ্ঞতা উপভোগ করবেন।

তিনি বলেন, আমাদের ফোনগুলোকে সুরক্ষিত রাখার প্রতিশ্রুতির অংশ হিসেবে গ্রাহকরা পাচ্ছেন তিন বছরের মাসিক সিকিউরিটি প্যাচ আর এছাড়াও দুই বছরের ও এস ( অপারেটিং সিস্টেম) আপডেটের প্রতিশ্রুতি তো থাকছেই।বাংলাদেশ-এর বাজারে নোকিয়া ৭.২ এবং ৬.২ উন্মোচন করতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত।

নোকিয়া তাদের ফিচার ফোনের সংখ্যাও বাড়িয়েছে। নোকিয়ার সর্বাধিক জনপ্রিয় সব ফিচারসহ চতুর্থ প্রজন্মের নতুন ফিচার ফোন হলো নোকিয়া ১০৫। পুরনো নোকিয়া ফোনে সকল ফিচারের সাথে নতুন নোকিয়া-১০৫ ব্যবহারকারীকে দিবে এক চার্জে সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত কথা বলার সুযোগ।

নোকিয়া-২২০ ৪জি-র মাধ্যমে ৪জি এলটিই* ব্যবহার করে এইচডি ভয়েস কল করার সুবিধা পাবেন ব্যবহারকারীরা। সেইসাথে ওয়েব ব্রাউজারের মাধ্যমে তাদের প্রিয় ওয়েবসাইটগুলি ব্রাউজ করতে পারবেন। এর মধ্যে নোকিয়া ৮০০ টাফ ফোনটিকে স্থায়িত্ব ও ব্যাটারি লাইফের দিক থেকে বেঞ্চমার্ক বলে দাবি প্রতিষ্ঠানটির।

বিরূপ পরিবেশে ব্যবহার্য ফোনটিতে রয়েছে পানি ও ধুলা নিরোধী ফিচার। আউটডোর অ্যাডভেঞ্চারের জন্য ডিজাইন করা এই ৪জি ফোনটিতে রয়েছে আধুনিক প্রযুক্তির গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট, ৪জি ব্যবহারের সক্ষমতা, ফেসবুক ও হোয়াটসঅ্যাপসহ বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় অ্যাপ। এছাড়া, বিনোদনকে প্রাধান্য দিয়ে নোকিয়া-১১০ মডেলের একটি অত্যন্ত সাশ্রয়ী মূল্যের ফোনও বাজারে আনছে তারা।

বাংলাদেশের এইচএমডি গ্লোবালের বিজনেসের প্রধান ফারহান রশিদ বলেন, ফিচার ফোনের সেরা ব্র্যান্ড হিসাবে আমরা আমাদের গ্রাহকদের বিভিন্ন চাহিদা মেটাতে ডিজাইন, ফর্ম-ফ্যাক্টর এবং কার্যকারিতায় নতুনত্ব আনতে অবিরত নতুন প্রযুক্তি নিয়ে আসছি। নোকিয়ার নতুন ফিচার ফোনগুলি আমাদের পোর্টফলিও বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে নতুন গ্রাহকদের কাছে সর্বশেষতম ফিচার এবং নেটওয়ার্ক ব্যবহারের বিশ্বাসযোগ্য ফোন হিসেবে পরিচিতি পাবে বলে আশা করছি।

তিনি আরও বলেন, বিশ্বজুড়ে নোকিয়া-১০৫ কয়েক মিলিয়ন বিক্রি হওয়াই প্রমাণ করে এ ফোনের জনপ্রিয়তা এবং শ্রেষ্ঠত্ব। মোবাইল ফোনের জগতে বর্তমান সময়ের চাহিদা মাথায় রেখে গ্রাহকদের জন্য ডিজাইন করা একটি চতুর্থ প্রজন্মের ফিচার ফোন এটি।

প্রাপ্যতা ও মূল্য

নোকিয়া ৭.২ চারকোল কালারের ৪জিবি/৬৪জিবি ফোনটি পাওয়া যাবে অক্টোবরের মাঝামাঝিতে এবং সেটটির দাম ওই সময়ই ঘোষণা করা হবে।
নোকিয়া ৬.২ সিরামিক ব্ল্যাক কালারের ৪জিবি/৬৪ জিবি ক্ষমতার ফোনটি অক্টোবরের মাঝামাঝি থেকে পাওয়া যাবে, সেটটির দাম ওই সময়ই ঘোষণা করা হবে।
নোকিয়া-৮০০ টাফ ব্ল্যাক ষ্টীল এবং ডেসার্ট স্যান্ড কালারে পাওয়া যাবে ডিসেম্বরের শুরুতে যার খুচরা মূল্য হবে ১০,২৫০ টাকা।
নোকিয়া- ২৭২০ ফ্লিপ ব্ল্যাক কালারে নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ-এ পাওয়া যাবে যার খুচরা মূল্য হবে ৯,৫০০ টাকা।
নোকিয়া ২২০ ৪জি ব্লু ও ব্ল্যাক কালারের সেট অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহ-এ পাওয়া যাবে এবং এর খুচরা মূল্য হবে ৩,৯৯৯ টাকা।
নোকিয়া-১১০ অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহ-এ ওশেন ব্লু, ব্ল্যাক কালারে পাওয়া যাবে এবং খুচরা মূল্য হবে ২,০৯৯ টাকা।
নতুন নোকিয়া-১০৫ আগামীকাল (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে ব্লু, ব্ল্যাক এবং পিঙ্ক এই তিনটি কালারে পাওয়া যাবে। সিঙ্গেল সিম মডেলের ফোনের দাম হবে ১,৩৯৯ টাকা এবং ডুয়াল সিম মডেলের ফোনটি পাওয়া যাবে ১,৪৯৯ টাকায়।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব রাকিবুল কবির, এইচএমডি গ্লোবাল বাংলাদেশের মার্কেটিং লিড ইফফাত জহুর প্রমুখ।