রোববার   ১৭ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২ ১৪২৬   ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

পিরোজপুর সংবাদ
৭৭

মঠবাড়িয়ায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুল আতংকে আশ্রয় কেন্দ্রে দুর্গত মানুষের ভীর

প্রকাশিত: ৯ নভেম্বর ২০১৯  

 

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় শনিবার ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাব ও ১০ নম্বর মহা বিপদ সংকেতের পর উপজেলার বলেশ্বর নদ তীরবর্তী ও জেলে পাড়ার মানুষ আতংকিত হয়ে পড়েছে। দুর্যোগের সম্ভাব্য রাতে আঘাত হানার বিষয়ে মেগাফোনে জনগণকে আগাম সতর্ক বার্তা দেয়া হচ্ছে। উপজেলার ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে তুষখালী, বড়মাছুয়া, আমড়াগাছিয়া,সাপলেজা, বেতমোড়  ইউনিয়নে সতর্ক সংকেত হিসেবে লাল পতাকা উত্তোলন করা হয়েছে। এসব এলাকায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরণের প্রস্ততি নিয়ে কাজ শুরু করেছেন।  উপজেলায় ১৫ টি ইউনিটে সিপিপির মোট ১২৭৫ জন স্বেচ্ছাসেবক প্রস্তত রয়েছেন। 
এদিকে বুলবুলের প্রভাবে বলেশ্বর নদে অস্বাভাবিক জোয়ারের প্লাবনে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ক্ষেতাছিড়া ও কচুবাড়িয়া পয়েন্টে বেড়িবাঁধ নদের প্লাবনে হুমকীর মুখে রয়েছে। শনিবার দুপুর থেকে এসব এলাকার মানুষ রাতের ঝড়ে পড়ার আতংকে পার্শবর্তী সাইক্লোন শেল্টারে আসা শুরু করেছে। সাথে গৃহস্থ পরিবার গুলো  তাদের গবাদি পশু নিরাপদ আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে আনছেন। 
জানাগেছে, উপজেলার ৫৮টি সাইক্লোন শেল্টারে দুর্যোগপূর্ণ এলাকায় দুপুর থেকে আতংকিত হয়ে মানুষ আশ্রয় নিতে ছুটে আসছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিএম সরফরাজ ্এর তত্বাবধানে সিপিপি স্বেচ্ছাসেবকরা বলেশ^র নদের মাঝের চরের ১২০০ জেলে পরিবার সদস্যদের চরের দুইটি ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নিয়েছেন। এছাড়া যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ওই চরের জেলে পরিবার গুলোকে নদী উত্তাল থাকায় সরিয়ে আনা সম্ভব হচ্ছেনা। আশ্রয় কেন্দ্র গুলোতে আশ্রিত পরিবার গুলোর জন্য শুকনা খাবার ও খাবার পানি বিতরণের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।
সরেজমিনে বলেশ্বর নদের বড়মাছুয়ায় সেনাবাহিনী নির্মিত ঘূণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রে ২ শতাধিক মানুষ আশ্রয় নিতে দেখা যায়। শুধু এ আশ্রয় কেন্দ্রে নয় উপকূলের ঝুঁকিপুর্ন আশ্রয় কেন্দ্র  গুলোতে দুপুর থেকে দুর্যেগ কবলিত মানুষ আসা শুরু করেছে। অনেক পরিবার নিজের বসতি ফেলে গাঁয়ের পাকা  বাড়িতেও আশ্রয়ের জন্য ছুটছেন।
  মঠবাড়িয়া উপজেলা সহকারি কমিশনার(ভূমি) রিপন বিশ্বাস জানান, স্বেচ্ছাসেবদের সতর্ক রাখা হয়েছে। যাতে ঝড় শুরুর আগেই মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নেওয়া সম্ভব হয়। এজন্য উপজেলা পরিষদে সার্বক্ষণিক একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। 

উল্লেখ্য ২০০৭ সালে ঘূর্ণিঝড় সিডরে আশ্রয় কেন্দ্র না যাওয়ায় এসব মানুষ চরম বিপন্ন হয়েছিল। এবার এসব এলাকার মানুষ সচেতনভাবে ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় আগাম তৎপর ।
 

এই বিভাগের আরো খবর