• শুক্রবার   ১৯ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ৪ ১৪২৯

  • || ২০ মুহররম ১৪৪৪

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন জাতিসংঘ মানবাধিকার প্রধান বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর আ. লীগের নেতারা কী করেছিলেন: প্রধানমন্ত্রী সুশীল বাবু মইনুল খুনিদের নিয়ে দল গঠন করে: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু হত্যায় জড়িতরা আজ মানবাধিকারের কথা বলে: প্রধানমন্ত্রী ভারত পারলে আমরাও রাশিয়া থেকে তেল কিনতে পারবো: প্রধানমন্ত্রী চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডে হতাহতের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক ‘ষড়যন্ত্র প্রতিহত করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের রায় কার্যকর করেছি’ খবরদার আন্দোলনকারীদের ডিস্টার্ব করবেন না: প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার মৃত্যু নেই প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে বঙ্গবন্ধু আমাদের রোল মডেল

বন্যায় ১৫ জেলায় ক্ষতি ৩২৮ কোটি টাকা

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ২৯ জুন ২০২২  

এবারের ভয়াবহ বন্যায় দেশের পাঁচ বিভাগের ১৫টি জেলার ৯৫টি উপজেলায় পশুসম্পদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সরকারি হিসাবেই প্রাকৃতিক এই দুর্যোগে ৬ হাজার ৫৬৯টি গবাদিপশুর খামার ক্ষতির মুখে পড়েছে। মোট আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ৩২৮ কোটি ১৪ লাখ ৫১ হাজার ১৫০ টাকা। এর মধ্যে প্রায় অর্ধেক ক্ষতিই হয়েছে সিলেটের চার জেলার ৩৪টি উপজেলায়।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) পর্যন্ত পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদনটির সার-সংক্ষেপে দেখা যায়, বন্যায় পাঁচ বিভাগের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত জনপদ সিলেট। তারপর যথাক্রমে রংপুর, ময়মনসিংহ, রাজশাহী ও ঢাকা। তবে ক্ষতির পরিমাণের দিক দিয়ে শীর্ষে রয়েছে ঢাকা বিভাগ। তারপর সিলেট, ময়মনসিংহ, রাজশাহী ও রংপুর।

ঢাকা বিভাগের একটি জেলার ১০টি উপজেলায় ৪৬টি ইউনিয়ন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব ইউনিয়নে ক্ষতিগ্রস্ত খামারের সংখ্যা ২৫৮টি। আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১৮৯ কোটি ৬২ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। ক্ষতিগ্রস্ত গবাদিপশুর সংখ্যা- গরু ২ লাখ ২৫ হাজার ৭৬০টি, মহিষ ১৫০টি, ছাগল ৬৮০টি, ভেড়া ১৪৫টি, মুরগি ১৩ হাজার ১০০টি ও হাঁস ৪ লাখ ৫৬ হাজার ৬১টি।

সিলেট বিভাগের চার জেলার ৩৪টি উপজেলায় ২৩৮টি ইউনিয়ন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব ইউনিয়নে ৫ হাজার ৫৯০টি খামার ক্ষতির মুখে পড়েছে। ক্ষতির পরিমাণ ১২০ কোটি ৮৯ লাখ ৫৯ হাজার ৩৫০ টাকা। ক্ষতিগ্রস্ত গরুর সংখ্যা ৬ লাখ ৭১ হাজার ১৪৫টি, মহিষ ৪৩ হাজার ২২৩টি, ছাগল ২ লাখ ১০ হাজার ২৩৬টি, ভেড়া ১ লাখ ৪৬ হাজার ৬৫৬টি, মুরগি ৪১ লাখ ৩১ হাজার ৬৬৪টি এবং হাঁস ৩৬ লাখ ৭২ হাজার ৩৩৩টি।

ময়মনসিংহের তিন জেলার ২১ উপজেলায় ১০৮টি ইউনিয়ন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে ক্ষতির মুখে পড়ে ৫৮৬টি খামার। আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১৬ কোটি ৪১ লাখ ১৩ হাজার ২০০ টাকা। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২ লাখ ৬০ হাজার ৫৬৮টি গরু, ৯০টি মহিষ, ১ লাখ ৬ হাজার ৪১৭টি ছাগল, ৭ হাজার ৮৪৪টি ভেড়া, ৩ লাখ ৭৫ হাজার ৩৩২টি মুরগি এবং ২ লাখ ৪৮ হাজার ৪৬০টি হাঁস।

রাজশাহী বিভাগের দুটি জেলার আটটি উপজেলায় ৩৮টি ইউনিয়ন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত খামারের সংখ্যা ১৩৫টি। ক্ষতির পরিমাণ ৯১ লাখ ৩৪ হাজার ১০০ টাকা। ক্ষতিগ্রস্ত গরুর সংখ্যা ৯৫ হাজার ৮৬৬টি, মহিষ ১ হাজার ২১৪টি, ছাগল ৮৭ হাজার ৬২৭টি, ভেড়া ৯ হাজার ২২৪টি, মুরগি ১ লাখ ৬১ হাজার ৫৭২টি ও হাঁস ৪৭ হাজার ৮৩১টি।

রংপুরের পাঁচটি জেলার ২২টি উপজেলায় ৯৮টি ইউনিয়নে ক্ষতিগ্রস্ত খামারের সংখ্যা শূন্য উল্লেখ থাকলেও আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ২৯ লাখ ৪৯ হাজার ৫০০ টাকা বলা হয়েছে প্রতিবেদনটিতে। ক্ষতিগ্রস্ত গবাদিপশুর মধ্যে গরু ৫০ হাজার ৬৬৬টি, মহিষ ৮৮৬টি, ছাগল ২৭ হাজার ২৯১টি, ভেড়া ৫ হাজার ৬৩৯টি, মুরগি ১ লাখ ৮৬৫টি এবং হাঁস ৪৯ হাজার ৯০০টি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. মনজুর মোহাম্মদ শাহজাদা বলেন, ‘বন্যায় প্রাণিসম্পদের ক্ষয়ক্ষতি দেখতে ঢাকা থেকে সিলেটে দুটি টিম পাঠানো হয়েছিল। তারা স্থানীয় প্রাণিসম্পদ অফিসের সঙ্গে সমন্বয় করে তথ্য সংগ্রহ করেছেন। অন্যান্য অঞ্চলের প্রাণিসম্পদ অফিসগুলোর পাঠানো তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে।’