• বুধবার   ২৮ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১২ ১৪২৮

  • || ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

পিরোজপুর সংবাদ

বঙ্গবন্ধু টানেল: বাধা কাটিয়ে পুরোদমে কাজ

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ২২ জুন ২০২১  

করোনা সংক্রমণ আর জমি অধিগ্রহণ—কর্ণফুলী নদীর তলদেশে টানেলের নির্মাণকাজের শুরুতে এই দুটি ছিল বড় প্রতিবন্ধকতা। ইতিমধ্যে দুটি প্রতিবন্ধকতা দূর হয়েছে। এখন কাজ চলছে পুরোদমে। কাজের এই ধারা অব্যাহত থাকলে নির্ধারিত সময় অর্থাৎ ২০২২ সালের ডিসেম্বরে শেষ হবে স্বপ্নের টানেলের নির্মাণকাজ। এরপরই যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে টানেল। এমনই আশাবাদ প্রকল্পসংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীদের।

দেশে প্রথমবারের মতো নির্মাণাধীন এই টানেলের চট্টগ্রাম নগর প্রান্ত শুরু হয়েছে পতেঙ্গার নেভাল একাডেমির পাশ থেকে। এই প্রান্ত থেকে শুরু হওয়া প্রথম টিউবের খননকাজ গত বছরের ২ আগস্ট শেষ হয়েছে। নদীর আনোয়ারা প্রান্ত থেকে টিউবের খননকাজ শুরু হয়েছে গত বছরের ১২ ডিসেম্বর। টানেল নগর প্রান্ত থেকে শুরু হয়ে কাফকো ও সিইউএফএল সীমানার মাঝখান দিয়ে উঠে কর্ণফুলী-আনোয়ারা প্রান্তে সংযোগ ঘটাবে। টানেলের মাধ্যমে চীনের সাংহাইয়ের আদলে চট্টগ্রামে ‘ওয়ান সিটি টু টাউন’ব্যবস্থা গড়ে তোলা হবে।

দেশে প্রথমবারের মতো কোনো নদীর তলদেশে নির্মাণাধীন এই টানেলের নামকরণ করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল। এতে ব্যয় হচ্ছে ১০ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকা। টানেল নির্মিত হলে দেশের জিডিপি শূন্য দশমিক ১৬৬ শতাংশ বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

টানেলের প্রকল্প পরিচালক হারুনুর রশীদ চৌধুরী বলেন, নির্মাণকাজ শুরুর আগে-পরে করোনা মহামারি ও জমি অধিগ্রহণ নিয়ে জটিলতা ছিল। এখন আর তা নেই। তাই আশা করা যাচ্ছে, টানেল আগামী দেড় বছরের মধ্যে যান চলাচলের উপযোগী হয়ে যাবে।

মূল টানেলের দৈর্ঘ্য ৩ দশমিক ৩২ কিলোমিটার। এর মধ্যে টানেলের প্রতিটি টিউবের দৈর্ঘ্য ২ দশমিক ৪৫ কিলোমিটার এবং ব্যাস ১০ দশমিক ৮০ মিটার। প্রতিটি টিউবে দুটি করে মোট চারটি লেন থাকবে। মূল টানেলের সঙ্গে পশ্চিম ও পূর্ব প্রান্তে ৫ দশমিক ৩৫ কিলোমিটার সংযুক্ত সড়ক থাকবে। আর রয়েছে ৭২৭ মিটার দীর্ঘ ওভারব্রিজ।

২০০৮ সালে সংসদ নির্বাচনের আগে চট্টগ্রামের লালদীঘি মাঠে নির্বাচনী সমাবেশে এই টানেল নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগ নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় আসার পর এই টানেল নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়।

প্রকল্পসংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য ২০১২ সালে সেতু কর্তৃপক্ষ, চায়না কমিউনিকেশন কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড (সিসিসিসিএল) ও অভি অরূপ অ্যান্ড পার্টনার্স হংকং লিমিটেড যৌথভাবে টানেল নির্মাণের কারিগরি ও অর্থনৈতিক সমীক্ষা করে। এরপর ২০১৪ সালের জুন মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চীন সফরকালে দুই দেশের মধ্যে জিটুজি ভিত্তিতে (সরকারের সঙ্গে সরকারের) সমঝোতা স্মারক সই হয়। চীন সরকারই সিসিসিসিএলকে এই টানেল নির্মাণের জন্য মনোনীত করে। এ বিষয়ে ওই বছরের ৩০ জুন সেতু কর্তৃপক্ষ ও সিসিসিসির মধ্যে বাণিজ্যিক চুক্তি সই হয়।

প্রকল্পসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের ভাষ্য, কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণ পাড় থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত অর্থনৈতিক অঞ্চল, গভীর সমুদ্রবন্দর ও বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের কাজ এগিয়ে যাচ্ছে। এসব কর্মযজ্ঞ চলছে টানেলকে ঘিরে। এই টানেলের বহুমুখী সুবিধা নেওয়ার অপেক্ষায় এখন সবাই। আর টানেলকে ঘিরে চট্টগ্রাম-কক্সবাজারের পর্যটনশিল্পের বিকাশ ঘটবে।

টানেলে যান চলাচল শুরু হলে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা কক্সবাজার ও দক্ষিণ চট্টগ্রামগামী গাড়িগুলোকে আর নগরে প্রবেশ করতে হবে না। চট্টগ্রাম সিটি আউটার রিং রোড হয়ে টানেলের মাধ্যমে দ্রুত সময়ের মধ্যে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারবে। এর ফলে চট্টগ্রাম নগরেও যানবাহনের চাপ কমে যাবে।

প্রকল্পের অগ্রগতি

এখন পর্যন্ত বড় অগ্রগতি হচ্ছে দুটি টিউবের মধ্যে একটির খননকাজ শেষ হওয়া। খননকাজ শেষ হওয়া টিউবে সড়কের নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে। গত মে পর্যন্ত ৭৮৮ মিটার রাস্তার কাজ শেষ হয়েছে। দ্বিতীয় টিউবের খননকাজ চলছে। এখন পর্যন্ত ১ হাজার ৬১০ মিটারের খননকাজ সম্পন্ন হয়েছে।

এ ছাড়া টানেলের পতেঙ্গা প্রান্তে ফ্লাড গেটের নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। টানেলের সঙ্গে সংযুক্তকারী দুটি রাস্তার নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে। আর আনোয়ারা প্রান্তে ৭২৭ মিটার দীর্ঘ ওভারব্রিজের কাজও অনেকটা এগিয়ে গেছে।

প্রকল্পের মাসিক অগ্রগতি প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি বছরের মে পর্যন্ত প্রকল্পের ভৌত অগ্রগতি হয়েছে ৬৮ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

মহামারি করোনার কারণে প্রকল্পের অগ্রগতি প্রত্যাশিত হয়নি বলে জানান প্রকল্পসংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা। তাঁরা জানান, ২০২০ সালের ২৬ মার্চ থেকে ২০২১ সালের এপ্রিল পর্যন্ত কাজের অগ্রগতি ছিল মাত্র ১৫ শতাংশ।

প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত প্রকৌশলীরা জানান, গত বছর করোনার কারণে কাজের অগ্রগতি যথেষ্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। কেননা প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। আর টানেলের বিভিন্ন ধরনের নির্মাণ উপকরণ সামগ্রী চীন থেকে আনা হয়। করোনার কারণে তাতে প্রভাব পড়ে। আর গত বছর করোনা সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর সীমিত পরিসরে কাজ অব্যাহত রাখা হয়েছিল। কিন্তু প্রথমবার লকডাউনের কারণে কাজ সেভাবে এগিয়ে নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এই মুহূর্তে প্রকল্পের গুরুত্বপূর্ণ কাজের মধ্যে সংযোগ সড়কের কাজ চলছে। আর প্রয়োজনীয় ৩৮২ দশমিক শূন্য ৮ একর জমির মধ্যে ইতিমধ্যে ৩৬২ দশমিক ৩২ একর অধিগ্রহণ করা হয়েছে। বাকি জমিও দ্রুত অধিগ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।