• বুধবার   ২৯ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৫ ১৪২৯

  • || ২৮ জ্বিলকদ ১৪৪৩

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
পদ্মা সেতু নিয়ে ষড়যন্ত্রে জড়িতদের খুঁজতে কমিশন গঠনের নির্দেশ হাইকোর্টের ব্যবসা বৃদ্ধিতে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী উন্নত যোগাযোগব্যবস্থা শিল্পায়নকে ত্বরান্বিত করে: প্রধানমন্ত্রী দু-একদিনের মধ্যে কমবে তেলের দাম: বাণিজ্যসচিব বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতেও ডোপ টেস্ট : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদ্মা সেতু সক্ষমতা-মর্যাদার প্রতীক: প্রধানমন্ত্রী ১০০ বছরেও কোনও ক্ষতি হবে না পদ্মা সেতুর: মন্ত্রিপরিষদ সচিব বাঙালি জাতির সমস্ত অর্জন আওয়ামী লীগের হাত ধরে এসেছে: তথ্যমন্ত্রী সংক্রমণ বাড়ছে, শিগগির বুস্টার ডোজ নিন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে আরো শক্তিশালী করতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছানির অস্ত্রোপচারের পর যা করবেন, যা করবেন না

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ২৮ মে ২০২২  

চোখের স্বাভাবিক লেন্স অস্বচ্ছ বা ঘোলাটে হয়ে গেলে দৃষ্টির সমস্যা দেখা দেয়। একেই মূলত ছানি পড়া বলে। বার্ধক্যজনিত কারণ, চোখের অসুখ কিংবা চোখে আঘাত লাগার মতো একাধিক সমস্যা থেকে ছানি পড়তে পারে।

অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে অধিকাংশ সময়েই ছানির সমস্যা দূর হয়ে যায়, তবে এই অস্ত্রোপচারের পর কিছু কিছু নিয়ম মেনে চলা আবশ্যক। চলুন জেনে নেয়া যাক সেই নিয়মগুলো সম্পর্কে- 

কী কী করবেন

>> নিতে হবে পর্যাপ্ত বিশ্রাম।

>> চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে পরে থাকতে হবে চশমা। শুধু বাইরেই নয়, বাড়িতেও।

>> টিভি দেখা, বই পড়ার মতো দৈনন্দিন কাজ করা যেতে পারে। তবে তা যেন মাত্রাতিরিক্ত না হয়।

>> কোনো রকম সমস্যা হলে অবিলম্বে যোগাযোগ করতে হবে চিকিৎসকদের সঙ্গে।

>> ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার ও সবুজ শাকসবজি বেশি করে খেতে হবে।

>> চোখের ওষুধ লাগাতে হবে নিয়ম মেনে। তবে কোনো ধরনের ওষুধ দেওয়ার আগে ভালো করে সাবান দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে হাত।

কী কী করবেন না

>> অস্ত্রোপচারের পর নিজে গাড়ি চালিয়ে বাড়ি ফিরবেন না।

>> কোনো মতেই ডলবেন না চোখ।

>> হাঁচি, কাশি ও মলত্যাগের সময় জোর দেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে অন্তত মাসখানেক।

>> সংক্রমণ এড়াতে বাথটাবে গোসল করা ও সাঁতার কাটা থেকে বিরত থাকতে হবে।

>> কিছু দিন বিমান যাত্রা এড়িয়ে চলাই ভাল।

>> ধুলোবালি রয়েছে এমন স্থান এড়িয়ে চলা বাঞ্ছনীয়।

>> চোখের রূপটান ব্যবহার করা চলবে না।

>> অতিরিক্ত চিনি এড়িয়ে চলাই ভাল।

তবে মনে রাখবেন সবার শরীর সমান নয়। ফলে একই নিয়ম সবার জন্য প্রযোজ্য না-ও হতে পারে। তাই চিকিৎসক যা যা বলবেন, তা মেনে চলতে হবে অক্ষরে অক্ষরে।