• শুক্রবার   ১৯ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ৪ ১৪২৯

  • || ২০ মুহররম ১৪৪৪

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন জাতিসংঘ মানবাধিকার প্রধান বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর আ. লীগের নেতারা কী করেছিলেন: প্রধানমন্ত্রী সুশীল বাবু মইনুল খুনিদের নিয়ে দল গঠন করে: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু হত্যায় জড়িতরা আজ মানবাধিকারের কথা বলে: প্রধানমন্ত্রী ভারত পারলে আমরাও রাশিয়া থেকে তেল কিনতে পারবো: প্রধানমন্ত্রী চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডে হতাহতের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক ‘ষড়যন্ত্র প্রতিহত করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের রায় কার্যকর করেছি’ খবরদার আন্দোলনকারীদের ডিস্টার্ব করবেন না: প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার মৃত্যু নেই প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে বঙ্গবন্ধু আমাদের রোল মডেল

মঠবাড়িয়ায় ১‘শ ৭ টি পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহার জমি ও বসত ঘর 

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ২১ জুলাই ২০২২  

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি :

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের এর আওতায় ১‘শ ৭ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে জমির দলীলসহ ঘরের চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২১ জুলাই বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) সকালে ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে এ কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেন। ঘরগুলো যথাক্রমে- উপজেলার বড়মাছুয়া ইউনিয়নে ৩৫ টি, সাপলেজায় ৪৭ টি, তুষখালীতে ২২ টি ও আমড়াগাছিয়ায় ৩ টি।

ঘর হস্তান্তর উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন শহীদ মাখন লাল দাশ মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করেন।  এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঊর্মি ভৌমিক, সহকারি কমিশণার (ভূমি), সাখাওয়াত জামিল সৈকত, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান সিফাত, মঠবাড়িয়া থানার ওসি মুহা. নূরুল ইসলাম বাদল, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিলন তালুকদার, ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান হাওলাদার, এবিএম ফারুক হাসান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মজিবুল হক খান মজনুসহ গণ মাধ্যাম কর্মিরা উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঊর্মি ভৌমিক জানান, “আশ্রায়নের অধিকার শেখ হাসিনার উপহার” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের এর আওতায় তৃতীয় পর্যায় ‘ক’ শ্রেণীভূক্ত ১‘শ ৭ টি পরিবারের মাঝে দুই শতক জমির দলীলসহ ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রতিটি ঘরে ব্যয় হয়েছে ২ লাখ ৫৯ হাজার ৫‘শ টাকা।

তিনি আরও বলেন, আগামী ২৫ জুলাই ‘ক’ শ্রেণী মুক্ত মঠবাড়িয়া (অর্থাৎ যাদের জমি ও ঘর নেই) ঘোষণা করা হবে। পরে ‘খ’ শ্রেণী অর্থাৎ যাদের জমি আছে ঘর নেই, তাদের তালিকা করে পর্যায়ক্রমে ঘর দেয়া হবে। সারা বিশে^র মধ্যে বাংলাদেশের বর্তমান সরকারই হত দরিদ্র জনগোষ্ঠিকে বসত ঘর ও জমিসহ ঘর দিচ্ছেন।