• মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৩ ১৪৩০

  • || ১৫ শা'বান ১৪৪৫

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
জনগণের আস্থা অর্জন করলে ভোট পাবেন: জনপ্রতিনিধিদের প্রধানমন্ত্রী জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে উন্নয়ন কাজের ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছিলাম কেউ যেন ভুয়া ক্লিনিক-চিকিৎসকের দ্বারা প্রতারিত না হন: রাষ্ট্রপতি স্থানীয় সরকার বিভাগে বাজেট বরাদ্দ ৬ গুণ বেড়েছে: প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সরকারকে মাটি-মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়তে হবে শবে বরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কাজে আত্মনিয়োগের আহ্বান সমাজের অসহায়, দরিদ্র মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসতে হবে দেশের মানুষের জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে হবে বিচারকদের ক্ষমতার অপব্যবহার রোধকল্পে খেয়াল রাখার আহ্বান মিউনিখ সফরে বাংলাদেশের অঙ্গীকার বলিষ্ঠরূপে প্রতিফলিত হয়েছে

নড়িয়ায় সড়কের পাশে রাখা পিকআপে আগুন, কাঁদছেন মালিক-চালক

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর ২০২৩  

১৫ বছর আগে বাবার মৃত্যুর পর সংসার চালানোর দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন মামুন ব্যাপারী। শুরুতে রিকশা চালাতেন। বছর পাঁচেক আগে ধারদেনা করে সাড়ে সাত লাখ টাকায় একটি পিকআপ কিনে নিজেই চালাতে শুরু করেন। এই আয় দিয়ে মা, স্ত্রী ও দুই সন্তানকে নিয়ে স্বাচ্ছন্দ্যেই চলছিল মামুনের সংসার। কিন্তু এক আগুনে অনেকটাই নিঃস্ব হয়ে গেলেন মামুন। গতকাল সোমবার মধ্যরাতে দুর্বৃত্তরা তাঁর পিকআপটি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে।
মামুন ব্যাপারীর (৪০) বাড়ি শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার মধ্য চাকধ গ্রামে। গতকাল দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে নড়িয়ার ভোজেশ্বর-চাকধ সড়কের পাশে দাঁড় করিয়ে রাখা মামুনের পিকআপে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। ক্ষতিগ্রস্ত পিকআপটি মেরামতের ব্যয় কীভাবে জোগাবেন, সেই দুশ্চিন্তায় এখন কাঁদছেন মামুন।
আজ মঙ্গলবার দুপুরে মধ্য চাকধ গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, একজন মিস্ত্রি এসেছেন মামুনের গাড়ির ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করতে। সেখানে দাঁড়িয়ে কাঁদছিলেন মামুন। তিনি  বলেন, পাঁচ বছর ধরে পিকআপটি এখানে রাখেন তিনি। কখনো কোনো অসুবিধা হয়নি। তাঁর কোনো শত্রু নেই বলে মনে করেন তিনি।
মামুন আরও বলেন, ‘পানি দিয়ে আগুন নেভানোর সময় পেট্রলের গন্ধ এসেছিল। আমার ধারণা কেউ পেট্রল দিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। এলাকার এক লোক সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় আগুন দেখে চিৎকার-চেঁচামেচি করেন। বাড়ি থেকে এসে দেখি আমার পরিবারের বাঁচার অবলম্বনটি পুড়ছে। যে পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে, তা মেরামত করতে ২ লাখ টাকা লাগবে। আমি এ টাকা কোথায় পাব?’

নড়িয়ার বিভিন্ন খামার থেকে মাছ নিয়ে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর, ফরিদপুরের বিভিন্ন স্থানে যেতেন মামুন। চলমান হরতাল-অবরোধের কারণে গত এক সপ্তাহ পিকআপ নিয়ে কোথায়ও যাননি। বাড়ির পাশে ভোজেশ্বর-চাকধ সড়কের পাশে গাড়িটি পার্ক করে রেখেছিলেন।
মামুনের স্ত্রী কুলসুমা আক্তার বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ। আমাদের কোনো সম্পদ ও সঞ্চয় নেই। স্বামী পিকআপ চালিয়ে যা আয় করতেন, তা দিয়েই সংসার চালাতাম। হরতাল অবরোধের কারণে ট্রিপ হয় না, আয় বন্ধ। তাতেই আমরা বিপাকে পড়েছি। সেই পিকআপটিই আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হলো। এখন কীভাবে আমাদের সংসার চলবে?’