• বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

জাপানের আদলে ঢাকায় হবে শিশু ট্রাফিক পার্ক

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ২৯ মে ২০২৪  

জাপানের আদলে ঢাকায় শিশুদের জন্য ট্রাফিক পার্ক নির্মাণ করবে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। এই পার্কে নতুন প্রজন্মকে শৈশব থেকেই ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন করে তুলতে হাতে-কলমে শেখানো হবে সড়কে চলাচলের নিয়ম। শিশুদের পাশাপাশি অভিভাবকদেরও পার্কে ট্রাফিক আইন বিষয়ে সচেতন করা হবে।

গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) এস এম মেহেদী হাসান। উন্নয়ন অংশীদার জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সি (জাইকা) ও ডিএমপির যৌথ উদ্যোগে ঢাকার ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার উন্নয়নে গৃহীত উদ্যোগের বিষয়ে জানাতে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এতে যুগ্ম কমিশনার বলেন, ট্রাফিক ব্যবস্থার উন্নয়নে জাইকা দুই বছর ধরে ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগের কর্মকর্তা ও সদস্যদের বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান, ডাটা সংগ্রহ ও বিশ্লেষণের কাজ করছে। সবার মধ্যে ট্রাফিক সচেতনতা বৃদ্ধি এবং সড়ক নিরাপত্তা ও রাস্তা ব্যবহারে ট্রাফিক আইন প্রচারে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, জাইকা-ডিএমপি যৌথ উদ্যোগে বেশ কয়েক বছর ধরেই বিভিন্ন স্কুল-কলেজ, কিন্ডারগার্টেন, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রী ও শিশুদের সচেতন করতে কাজ চলছে। এর অংশ হিসেবে শিশুরা যেন ছোটবেলা থেকেই ট্রাফিক আইন মানা এবং রাস্তায় কীভাবে চলতে হয়, সে বিষয়গুলোর ওপর হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ নিতে পারে, সে জন্য ঢাকার বিভিন্ন স্থানে শিশু ট্রাফিক পার্ক তৈরি করা হবে।

পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, জাইকার সহযোগিতায় ডাটা বিশ্লেষণ করে যানজট কোথায় হচ্ছে, কোথায় দুর্ঘটনা বেশি হচ্ছে– এই স্পটগুলো নির্ধারণের জন্য বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার ব্যবহার করা হচ্ছে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গাড়িচালক, পথচারী ও বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষকে ট্রাফিক আইন ও শৃঙ্খলা বিষয়ে সচেতন করে তুলতে ইতোমধ্যে মোহাম্মদপুরে ‘ট্রাফিক এডুকেশন রিসার্চ সেন্টার’ স্থাপন করা হয়েছে। এখানে পথচারী থেকে শুরু করে গাড়িচালকদের ৩০ থেকে ৪৫ মিনিটের সেশনে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। ট্রাফিক সিগন্যাল অটোমেশনে দুই সিটির সঙ্গে শিগগির কাজ শুরু হবে।