• বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

সব অফিস-আদালতে ই-সিগনেচারের বিধান নিশ্চিতে হাইকোর্টের রুল

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ৮ জুন ২০২৪  

বাংলাদেশের সব অফিস আদালতে ই-সিগনেচার বা ইলেক্ট্রনিক-সাক্ষর বিধান নিশ্চিত করতে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে এ বিষয়ে গৃহীত পদক্ষেপসমূহ আগামী ১২ আগস্টের মধ্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় এবং সার্টিফিকেট প্রদানকারী নিয়ন্ত্রন কর্তৃপক্ষকে জানানোর নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। লয়েল লাইফ ফাউন্ডেশন ট্রাস্ট একটি মানবাধিকার সংগঠন এই রিটটি দায়ের করেন। অনলাইন ট্রাঞ্জেকশন ও সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিতে এ রিটটি দায়ের করেন তারা।

প্রসঙ্গত, ডিজিাটল সেবার জায়গাগুলোতে যেমন উন্নয়ন ঘটেছে, সাথে সাথে অপরাধ বিশেষ করে, সাইবার অপরাধও কিন্তু বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশে কোর্ট-ব্যাংকিং খাত থেকে শুরু করে অফিস কার্যক্রমে অনেক ক্ষেত্রে স্বাক্ষর করতে হয়। কিন্তু সেগুলোর অথেন্টিকেশন অনেক সময় হারিয়ে যায়; অনেকে স্বাক্ষর করলেও পরে অস্বীকার করেন এবং তিনি প্রকৃতপক্ষে স্বাক্ষর করেছিলেন কিনা তা কোর্টে প্রমাণ করাও কষ্টকর হয়। ই-স্বাক্ষর চালু হলে স্বাক্ষর অস্বীকার করার সুযোগ থাকবে না; কারণ যিনি স্বাক্ষর করবেন তিনি তার ব্যক্তিগত আইডি থেকে তার স্বাক্ষরটি প্রদান করবেন।

এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মোহাম্মদ হুমায়ন কবির (পল্লব) বলেন, অফিস-আদালেতর অনলাইন কার্যক্রমে ই-সিগনেচার প্রদানের বিষয়ে বিধান থাকলেও তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না। ই-সিগনেচার বাস্তবায়ন হলে অপরাধ অনেকাংশে কমে যাবে ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত হবে।