• বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৪ ১৪৩০

  • || ১৬ শা'বান ১৪৪৫

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
পুলিশ জনগণের বন্ধু, সে কথা মাথায় রেখেই দায়িত্ব পালন করতে হবে অপরাধের ধরন বদলাচ্ছে, পুলিশকেও সেভাবে আধুনিক হতে হবে পুলিশ সপ্তাহ শুরু, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী আইনশৃঙ্খলা সমুন্নত রাখতে পুলিশ নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে দেশপ্রেম ও পেশাদারিত্বের পরীক্ষায় বারবার উত্তীর্ণ হয়েছে পুলিশ জনগণের আস্থা অর্জন করলে ভোট পাবেন: জনপ্রতিনিধিদের প্রধানমন্ত্রী জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে উন্নয়ন কাজের ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছিলাম কেউ যেন ভুয়া ক্লিনিক-চিকিৎসকের দ্বারা প্রতারিত না হন: রাষ্ট্রপতি স্থানীয় সরকার বিভাগে বাজেট বরাদ্দ ৬ গুণ বেড়েছে: প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সরকারকে মাটি-মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়তে হবে

শীতবস্ত্র বিতরণের কথা বলে জেলা প্রশাসক পরিচয়ে অর্থ আদায়ের চেষ্টা

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ৯ নভেম্বর ২০২২  

মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফের নাম ভাঙিয়ে বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। শীতবস্ত্র বিতরণের কথা বলে তাদের কাছে আর্থিক সহযোগিতা চাওয়া হয়।

ঘটনা জানতে পেরে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক পেজে একটি সতর্কবার্তা পোস্ট করা হয়।

মঙ্গলবার (৮ নভেম্বর) বিকেলে এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করা হয়েছে। তিনি বলেন, শীতবস্ত্র বিতরণের কথা বলে বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির কাছে একটি চক্র জেলা মানিকগঞ্জ প্রশাসকের নাম ও পরিচয় দিয়ে মোবাইল ফোনে আর্থিক সুবিধা চাচ্ছে।

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, সোমবার ও মঙ্গলবার দুই নম্বর থেকে হার্ড গ্রুপের এজিএম, স্পেকট্রা গ্রুপের আফতাব হোসেন এবং শিবালয় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মিরাজ হোসেন লালন ফকিরকে ফোন করা হয়। তাদের কাছে জেলা প্রশাসক পরিচয় দিয়ে আর্থিক সুবিধা চাওয়া হয়। পরে ওই ব্যক্তিরা আমার সরকারি নম্বরে ফোন দিলে বিষয়টি জানতে পারি।

শিবালয় উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মিরাজ হোসেন লালন ফকির বলেন, ‘একটি অচেনা নম্বর থেকে আমার কাছে একটা ফোন আসে। অপরপ্রান্ত থেকে ডিসির পিএ পরিচয় দেন এবং ডিসি কথা বলবেন বলে এক ব্যক্তিকে ফোন ধরিয়ে দেন। পরে ওই ব্যক্তি নিজেকে মানিকগঞ্জের ডিসি আব্দুল লতিফ পরিচয় দেন এবং শীতবস্ত্রের কথা বলে আর্থিক সুবিধার জন্য বলেন। কিন্তু ওই ব্যক্তির কণ্ঠস্বর জেলা প্রশাসকের মতো না হওয়ায় ফোন কেটে দেই এবং ডিসির সরকারি নম্বরে কল দিয়ে বিস্তারিত জানাই। এরপরই বুঝতে পারি এটা প্রতারক চক্রের কাজ।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রউফ সরকার বলেন, জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। বিষয়টি আমলে নিয়ে গুরুত্ব সহকারে কাজ করছে পুলিশ। আশা করছি দ্রুত সময়ের মধ্যে দুষ্কৃতি চক্রকে ধরতে পারবো।