• শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১০ ১৪৩০

  • || ১২ শা'বান ১৪৪৫

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন প্রতিবেশীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই সামুদ্রিক সম্পদ আহরণের আহ্বান সমুদ্রসীমার সম্পদ আহরণ করে কাজে লাগানোর তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর ২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলেনি: শেখ হাসিনা হঠাৎ টাকার মালিক হওয়ারা মনে করে ইংরেজিতে কথা বললেই স্মার্টনেস ভাষা আন্দোলন দমাতে বঙ্গবন্ধুকে কারান্তরীণ রাখা হয় : সজীব ওয়াজেদ ভাষা আন্দোলনের পথ ধরেই বাংলাদেশের মানুষ স্বাধিকার পেয়েছে অশিক্ষার অন্ধকারে কেউ থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী একুশ মাথা নত না করতে শেখায়: প্রধানমন্ত্রী একুশে পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

ওসি আবদুল্লাহর আরও সাড়ে ৩ কোটি টাকার সম্পদের খোঁজ!

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ৩০ নভেম্বর ২০২৩  

ফেনী পুলিশ সুপার কার্যালয়ের ক্রাইম শাখার পুলিশ পরিদর্শক ও পিরোজপুর মঠবাড়িয়া থানার সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আব্দুল্লাহ ও তার পরিবারের নামে আরও প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের খোঁজ পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সংস্থাটির তদন্তে পাওয়া আব্দুল্লাহ ও তার শাশুড়ি কারিমা খাতুনের নামে মোট তিন কোটি ৪৫ লাখ ৩৪ হাজার ২৬৫ টাকার স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ ইতোমধ্যে ক্রোক ও অবরুদ্ধ করার আদেশ জারি হয়েছে।

তাদের সম্পদের মধ্যে রয়েছে- শাশুড়ি কারিমা খাতুনের নামে ৪৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র, বিভিন্ন ব্যাংকে জমা এক কোটি ৬৯ লাখ টাকা, ৬৫ লাখ টাকার গাড়ি এবং আব্দুল্লাহর নিজ নামে পুলিশ অফিসার্স হাউজিং সোসাইটিতে জমা দেওয়া ২৫ লাখ ও আনন্দ হাউজিং সোসাইটিতে দুটি প্লট ক্রয়বাবদ জমা ৪০ লাখ টাকা।

দুদকের পিরোজপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোস্তাফিজের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল ২৮ নভেম্বর সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মোহা. মহিদুজ্জামান ওই আদেশ জারি করেন।

এ বিষয়ে বুধবার (২৯ নভেম্বর) তদন্ত কর্মকর্তা ও পিরোজপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক শেখ গোলাম মাওলা বলেন, দুদকের মামলা দায়েরের পর আদালতের আদেশে সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা আব্দুল্লাহর ১৮ কোটি ১৬ হাজার ৫৬৩ টাকা মূল্যের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ ক্রোক ও ফ্রিজ অবস্থায় রয়েছে। তদন্তকালে আরও সম্পদের খোঁজ পাওয়ার পর ক্রোক ও ফ্রিজের আবেদন করলে বিজ্ঞ সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালত শুনানি শেষে ক্রোক ও ফ্রিজের আদেশ দেন। এখন আমরা কমিশনের নির্দেশনা অনুসরণ করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করব।


দুদকের অনুসন্ধান সূত্রে জানা যায়, পুলিশ কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ শাশুড়ি কারিমা খাতুনের নামে বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে হিসাব খুলে লেনদেন পরিচালনা করে আসছেন। তদন্তকালে আসামি কারিমা খাতুনের নামে ৪৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র ক্রয়, বিভিন্ন ব্যাংক হিসাবে এক কোটি ৬৯ লাখ ৭২ হাজার ৬৫ টাকা জমা রাখার তথ্য পাওয়া যায়। এ ছাড়া, কারিমা খাতুনের নামে টয়োটা হার্ড জিপ ২০১৭ মডেলের একটি গাড়ি পাওয়া যায়। যার মূল্য ৬৫ লাখ টাকা।

অন্যদিকে, আসামি সৈয়দ আব্দুল্লাহর নামে পুলিশ অফিসার্স হাউজিং সোসাইটি-২ এর সদস্য নং- ২৯০ এর অনুকূলে বিভিন্ন কিস্তিতে সর্বমোট ২৫ লাখ ২০ হাজার টাকা পরিশোধের তথ্য এবং আনন্দ হাউজিং সোসাইটিতে রোড নং- ড্যাপ ৬০ ও ১১০, প্লট নং- ৬৩০৩ ও ৬৩০৪ এ বরাদ্দকৃত (প্রতিটি প্লট ছয় কাঠা করে) জমির মূল্য বাবদ ৪০ লাখ ৪২ হাজার ২০০ টাকা পরিশোধের তথ্যসহ স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ মিলিয়ে তিন কোটি ৪৫ লাখ ৩৪ হাজার ২৬৫ টাকার সম্পদ ক্রোক ও অবরুদ্ধ করা হয়েছে। যা তিনি উৎস ও মালিকানা গোপন করার চেষ্টা করে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ১৫ জুন পুলিশ কর্মকর্তা সৈয়দ আব্দুল্লাহ, তার স্ত্রী ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে ১৮ কোটি ১৬ হাজার ৫৬৩ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুদকের পিরোজপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে সংস্থাটির সহকারী পরিচালক মোস্তাফিজ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালত স্থাবর সম্পদ ক্রোক এবং অস্থাবর সম্পদ অবরুদ্ধ করার আদেশ দেন। মামলা দায়ের করার পর আদালতের নির্দেশনা অনুসরণ করে স্থাবর সম্পদে ক্রোক বিজ্ঞপ্তি লাগানো হয়। ক্রোক করার আগে গত ৬ আগস্ট জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়।


ক্রোক করা সম্পদের মধ্যে রয়েছে- কাকরাইলের আমিন মোহাম্মদ ফাউন্ডেশন লিমিটেডের ১৪ তলা বাণিজ্যিক ভবন গ্রিন সিটি রিজেন্সির (২৬,২৭, ২৭/১ কাকরাইল) তৃতীয় তলায় দুই হাজার ১২০ বর্গফুটের ফ্ল্যাট এবং গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য ২৬৬ বর্গফুটসহ মোট দুই হাজার ৩৮৬ বর্গফুট বাণিজ্যিক স্পেস এবং ঢাকার বড় মগবাজারে এবিসি রিয়েল এস্টেটের দ্য ওয়েসিস কমপ্লেক্স টাওয়ারের (ইস্পাহানি কলোনি, ৩৯ বড় মগবাজার) ১০ম তলায় দুই হাজার ১৫০ বর্গফুটের ফ্ল্যাট।

জানা গেছে, আসামি সৈয়দ আব্দুল্লাহ ১৯৯১ সালে সাব-ইনস্পেক্টর পদে পুলিশে যোগ দেন। ২০০৭ সালে ইনস্পেক্টর পদে পদোন্নতি পান। ২০১৯ সালের ২৯ মার্চ থেকে ২০২০ সালের ২৪ মার্চ পর্যন্ত পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া থানার ওসি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার স্ত্রীর নাম ফারহানা আক্তার ও শাশুড়ি কারিমা খাতুন। সৈয়দ আব্দুল্লাহ মঠবাড়িয়া থানায় কর্মরত থাকাকালীন তার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার, মাদক ও চোরাকারবারিদের সঙ্গে সখ্যতা, মিথ্যা মামলার রেকর্ড ও অনৈতিকভাবে বিপুল সম্পদ অর্জনের অভিযোগ ওঠে। এসব অভিযোগ অনুসন্ধানের জন্য ২০২০ সালে কমিশন থেকে অনুমোদন দেওয়া হয়।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, সৈয়দ আব্দুল্লাহ প্রতারণার উদ্দেশ্যে স্ত্রী ফারহানা আক্তারের নামে দুটি এনআইডি কার্ড তৈরি করে এর বিপরীতে পৃথক দুটি ট্যাক্স শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) গ্রহণ করেন। যা ব্যবহার করে বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে এক কোটি ৭৬ লাখ ৯৫ হাজার ৮৫৫ টাকা, এক কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র, ৩১ লাখ টাকায় গাড়ি ক্রয়সহ মোট তিন কোটি সাত লাখ ৯৫ হাজার ৮৫৫ টাকার অস্থাবর সম্পদ ক্রয় করেন। এ ছাড়া, নিজ নামে দুটি প্লট, স্ত্রীর নামে দুটি আবাসিক ফ্ল্যাট, একটি বাণিজ্যিক স্পেস এবং স্ত্রীর ব্যাংক হিসাব থেকে অর্থ পরিশোধ করে শাশুড়ি কারিমা খাতুনের নামে একটি আবাসিক ফ্ল্যাট বাবদ মোট ১৫ কোটি সাত লাখ ৬৪ হাজার ৪৩২ টাকার অধিক মূল্যের স্থাবর সম্পদ ক্রয়ের তথ্য পাওয়া যায়। দুদকের অনুসন্ধানে এসব স্থাবর ও অস্থাবর মিলিয়ে মোট ১৮ কোটি ১৫ লাখ ৬০ হাজার ২৮৬ টাকার সম্পদ অর্জনের তথ্য মেলে।