• মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৩ ১৪৩০

  • || ১৫ শা'বান ১৪৪৫

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
জনগণের আস্থা অর্জন করলে ভোট পাবেন: জনপ্রতিনিধিদের প্রধানমন্ত্রী জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে উন্নয়ন কাজের ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছিলাম কেউ যেন ভুয়া ক্লিনিক-চিকিৎসকের দ্বারা প্রতারিত না হন: রাষ্ট্রপতি স্থানীয় সরকার বিভাগে বাজেট বরাদ্দ ৬ গুণ বেড়েছে: প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সরকারকে মাটি-মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়তে হবে শবে বরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কাজে আত্মনিয়োগের আহ্বান সমাজের অসহায়, দরিদ্র মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসতে হবে দেশের মানুষের জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে হবে বিচারকদের ক্ষমতার অপব্যবহার রোধকল্পে খেয়াল রাখার আহ্বান মিউনিখ সফরে বাংলাদেশের অঙ্গীকার বলিষ্ঠরূপে প্রতিফলিত হয়েছে

গাজায় প্রতিদিন হাজারো মানুষের খাদ্য সংস্থান করেন তিনি

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ১৬ নভেম্বর ২০২৩  

ফিলিস্তিনের গাজায় চলছে রান্নার বিশাল কর্মযজ্ঞ। তবে এই আয়োজন কোনো অনুষ্ঠানের আমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য নয়, ইসরায়েলি আগ্রাসনে সর্বস্ব হারানো মানুষদের জন্য। আর এর উদ্যোক্তা মৃত্যুপুরী গাজারই দক্ষিণ দিকের বাসিন্দারা। যেখানে সহিংসতার মাত্রা এখনও খানিকটা কম।
বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, প্রতিদিন প্রায় তিন হাজার মানুষের জন্য খাবার রান্না করা হয়। চাল-মাংস মিলিয়ে তৈরি হয় মধ্যপ্রাচ্যের উপাদেয় খাবার ‘খাবসা’। যা বিলি করা হবে, ভিটেমাটি ছেড়ে আসা উত্তর গাজার মানুষদের মাঝে।

স্থানীয় বাসিন্দা আবু মোহাম্মাদ বলেন, উত্তর গাজা থেকে এতোটা পথ পায়ে হেঁটে আসেন বিপুল মানুষ। তাদের কাছে না আছে পানি, না আছে খাবার। কতোদিন ধরে না খেয়ে আছে, কে জানে? এদের জন্যই মূলত রান্না করি। প্রতিদিন প্রায় ৩ হাজার মানুষকে খাওয়াই আমরা।

গ্যাস বা জ্বালানি না থাকায় লাকড়ির চুলায় চলে রান্না। তবে ফুরিয়ে আসছে লাকড়ির যোগান। শেষ হওয়ার পথে চাল, মাংস, তেল-লবণসহ অন্যান্য উপকরণও। তাই অসহায় মানুষদের মাঝে খাবার বিতরণের এ উদ্যোগ আর কতদিন চলবে, তা নিয়ে সন্দিহান উদ্যোক্তারা।

এ প্রসঙ্গে আবু মোহাম্মাদ বলেন, বড়জোর আর দুই-তিন দিনের যোগান আছে আমাদের কাছে। এরপর বন্ধ করে দিতে হবে রান্নাঘর।

এক মাসের বেশি সময় ধরে চলা ইসরায়েলি আগ্রাসনে পুরো গাজাই যেন ধ্বংসস্তূপ। নিরাপত্তার নিশ্চয়তা নেই উপত্যকার কোথাও। শ্বাসরুদ্ধকর এ পরিস্থিতিতে নিশ্চয়তা নেই নিজেদেরই অন্ন-বস্ত্রের, তবু অন্যের খাবারের ব্যবস্থা করে তৃপ্তি খুঁজছেন এই মানুষগুলো।