• বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ৮ ১৪৩০

  • || ১০ শা'বান ১৪৪৫

পিরোজপুর সংবাদ

মঠবাড়িয়ার ঐতিহ্য খেজুরের রস সংগ্রহ প্রথা ধরে রেখেছেন গাছিরা

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ৩০ জানুয়ারি ২০২৪  

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় উপজেলায় ঐতিহ্য খেজুর গাছ কেঁটে রস সংগ্রহ ও গুড় তৈরী করার প্রথা ধরে রেখেছেন গাছিরা। এক দশক আগের মতো সারি সারি খেজুর গাছ চোখে না পরলেও একবাওে বিলুপাত হয়নি এ ঐহিহ্য। এখনও খেজুর গাছ কাটার বিভিন্ন সরঞ্জামসহ গাছ কাটার গাছিদের ব্যবস্থার দৃশ্যমান রয়েছে। প্রতিদিন গাছিরা খেজুর রস সংরক্ষণ করার জন্য ঘুরে বেড়ান গ্রামের মেঠোপথ গুলোতে রস সংরক্ষণ কাজে। দেখা গেছে রস আহরণে গাছিরা কোমরে দড়ির সাথে ঝুড়ি (টোনা) বেঁধে ধারালো দা দিয়ে নিপুণ হাতে গাছ চাঁচাছোলা ও নলি (খিল) বসানোর কাজ করছে। মঠবাড়িয়ার সদর, আমড়াগাছিয়া, সাপলেজা, তুষখালী, বেতমোর, মিরুখালী ও বড় মাছুয়া ইউনিয়নে সুস্বাদু এই খেজুরের রস আগুনে জ্বাল দিয়ে তৈরী করেন বিভিন্ন রকমের গুড়ের পাটালি ও নালি গুড়।

সব সময়ই খেজুর গাছের কদরও বেশি থেকে। এক সময় খেজুরের রস বিক্রি হতো প্রতি কেজি ৮-১০ টাকা। বর্তমানে তা ৫০-৮০ টাকা। অনেক জায়গায় ১০০ টাকায়ও বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া রসের কলস ৫০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। শীতের মৌসুম এলেই গ্রামের ঘরে ঘরে খেজুরের রস দিয়ে পায়েস (সিন্নি), রসের গুড় দিয়ে ভাঁপা পিঠা এবং গাড়ো রস তৈরি করে মুড়ি, চিড়া, খই ও চিতই পিঠাসহ হরেক রকম পিঠা পুলির মহোৎসব। আর রস জ¦ালাতে আগের দিনের বিকেলে, খড়-কুটা, গাছের শুকনো পাতা সংগ্রহ করেন নারীরা।

তবে সচেতন লোকজন মনে করছেন খেজুর গাছ হারিয়ে যাবার প্রধান কারণ- ইট ভাটার জ্বালানী হিসাবে ব্যবহারের জন্য বেপরোয়া খেজুর গাছ নিধন। গ্রামের রাস্তাগুলো সংস্কার ও নতুন করে খেজুর গাছ রোপণে মানুষের আগ্রহের অভাবে খেজুর গাছ ও খেজুরের রস ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে। তবে এখনও রাস্তার আশেপাশে কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে হাতেগোনা কিছু খেজুর গাছ।

উপজেলার বেতমোর রাজপাড়া গ্রামের গাছি ফারুক হোসেন (৪৫) জানান, আগে তাদের দারুন কদর ছিল, মৌসুম শুরুর আগ হতেই কথাবার্তা পাকা হতো কার কটি খাজুর গাছ কাটতে হবে। কিন্তু এখন আর কেউ ডাকে না। আগের মতো তেমন খেজুর গাছও নেই। তার কিছু গাছ আছে সেগুলো চার বছর ধরে কেটে রস সংগ্রহ করে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছি পাশাপাশি হারিয়ে যাওয়া গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখার চেষ্টা করছেন।

প্রবীণ গাছি জামাল ফরাজি (৫২) সাথে কথা হলে তিনি জানান, রাস্তাগুলো সংস্কার এবং ইট পোড়াানোর কাজে  খেজুর গাছ কেটে ফেলা হলেও নতুন করে আর কেউ গাছ লাগাচ্ছে না। খেজুর গাছ যে ভাবে নিধন হচ্ছে যদি সেভাবে রোপণ না করে, তাহলে কয়েক বছর পর খেজুরের রস গ্রামেও পাওয়া যাবে না। সরকার যদি গ্রামের রাস্তা গুলোর পাশে নতুন করে খেজুর গাছ রোপণ উদ্যোগ নেয়। তাহলে মানুষ আগের মতো খেজুরের রস খেতে পারবে।

মঠবাড়িয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান জানান, মানুষ খেজুর গাছ যে ভাবে নিধন করছে সেভাবে রোপণ করে নাই। সবার অবস্থান থেকে উদ্যোগ নিয়ে খেজুর গাছ রোপণ না করে কালের বিবর্তনে শহরের মত গ্রামও খেজুর রস হারিয়ে যাবে। আর এই ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে হলে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে আমাদের বেশি বেশি খেজুর গাছ রোপন করতে হবে।