• রোববার   ২৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪২৯

  • || ২৫ শাওয়াল ১৪৪৩

পিরোজপুর সংবাদ
ব্রেকিং:
নেতিবাচক রাজনীতিই বিএনপিকে গ্রাস করেছে: কাদের আওয়ামী লীগের মূল শক্তি জনগণ: মাহবুব উল আলম হানিফ দারিদ্র্য দূরীকরণ প্রধানমন্ত্রীর অন্যতম লক্ষ্য: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী প্রচারণার কৌশল হিসেবে বিএনপি সরকারকে দায়ী করে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদ্মাসেতুর উদ্বোধনে আমন্ত্রণ পাবেন বিএনপি নেতারা: কাদের পাটখাত আবার পুনরুজ্জীবিত হয়েছে: পাটমন্ত্রী মানুষের মুখে হাসি দেখে বিএনপি’র বুকে ব্যথা হয়: ওবায়দুল কাদের নির্বাচনকে প্রহসনে রূপান্তরের কোনো ইচ্ছা আমাদের নেই: সিইসি বিএনপি ষড়যন্ত্র বন্ধ করলেই দেশের অগ্রগতির প্রতিবন্ধকতা দূর হবে: কাদের বাংলাদেশে জ্বালানি তেল বিক্রির প্রস্তাব দিয়েছে রাশিয়া: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

মঠবাড়িয়ায় উদ্ধার হওয়া লাশের পরিচয় উদঘাটন করেছে পিবিআই

পিরোজপুর সংবাদ

প্রকাশিত: ২৫ এপ্রিল ২০২২  

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি :

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত পরিচয়ের অর্ধগলিত লাশের পরিচয় সনাক্ত করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। নিহতের নাম মাকসুদুর রহমান (৫৮)। সে জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ থানার কয়ড়া গ্রামের মৃত সেকান্দার আলীর ছেলে। তিনি খুলনার বয়রা কর্মজীবী মহিলা হোস্টেট প্রকল্পে অর্থ বিভাগে চাকুরী করতেন। স্ত্রী ও ৩ সন্তান নিয়ে তিনি খুলনার খালিশপুরে বাসা ভাড়া থাকতেন। এদিকে নিহতের ভাই মোবারক হোসেন বাদী হয়ে রোববার বিকেলে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে মঠবাড়িয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। 

মামলা ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মাকসুদুর রহমান গত ১৭ এপ্রিল সকালে খুলনার খালিশপুর এলাকার ভাড়া বাসা থেকে বের হয়ে কর্মস্থলে যান। বেলা দুইটায় অফিস শেষে তিনি বের হয়ে আর বাসায় ফেরেননি। তাঁর স্ত্রী পারভিন বেগম স্বামীর মুঠোফোন বন্ধ পেয়ে সম্ভাব্য স্থানে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে পরদিন ১৮ এপ্রিল খালিশপুর থানায় একটি জিডি করেন। এর আগে গত শনিবার রাতে মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ উপজেলার সূর্যমনি গ্রামের সৌদি প্রবাসী শুক্কুর শিকদারের নতুন বাড়ির ছনবন থেকে ওই ব্যক্তির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেন। এরপর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) মৃত ব্যক্তির হাতের আঙুলের ছাপ সংগ্রহ করে নির্বাচন কমিশন থেকে পরিচয় সনাক্ত হয়ে খুলনার খালিশপুর থানায় যোগাযোগ করে। খালিশপুর থানা থেকে খবর পেয়ে মাকসুদুর রহমানের ছোট ভাই মোবারক হোসেন মঠবাড়িয়া থানায় গিয়ে পোশাক ও জুতা দেখে লাশ সনাক্ত করেন। 

নিহতের ভাই মোবারক হোসেন বলেন, ‘আমার ভাইয়ের কোনো শত্রু ছিল না। কেন তাঁকে হত্যা করা হলো, বুঝতে পারছি না।’

মঠবাড়িয়া থানার ওসি মুহা. নূরুল ইসলাম বলেন, ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ওই ব্যক্তিকে কৌশলে মঠবাড়িয়ায় এনে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চলছে।